এশিয়া কাপ ফাইনাল ম্যাচে কারা খেলতে পারে ?

Home » এশিয়া কাপ ফাইনাল ম্যাচে কারা খেলতে পারে ?

কে জিতবে এশিয়া কাপ ফাইনাল? এবারের এশিয়া কাপ শুরু হয়েছে ৩০শে অগাস্ট, ফাইনাল হবে ১৭ই সেপ্টেম্বর।

এবছর ষোলো বছরে পড়লো এই মহাদেশীয় টুর্নামেন্ট। এবারের টুর্নামেন্টের আয়োজক পাকিস্তান ও শ্রীলংকা।

এশিয়া কাপ ফাইনাল ম্যাচ হবে কলম্বোর প্রেমদাস স্টেডিয়ামে। ফ্যানেরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে আছে  ফাইনালের জন্য।

কে যেতে পারে ফাইনালে?

নিয়ম অনুযায়ী সুপার ফোর রাউন্ডের শীর্ষ দুই টিমই এশিয়া কাপ ফাইনাল খেলবে। সবার নজর তাই এখন সুপার ফোরের দিকে।

গ্রুপ স্টেজে দুই গ্রুপ থেকে শীর্ষ দুই টিমের মধ্যে সুপার ফোর খেলা হবে, তারপরই নির্ধারিত হবে কে খেলবে এশিয়া কাপ ফাইনাল।

গ্রুপ স্টেজের সব ম্যাচের পর গ্রুপ এ থেকে ভারত, পাকিস্তান এবং গ্রুপ বি থেকে বাংলাদেশ, শ্রীলংকা সুপার ফোরে উঠেছে।

এই  রাউন্ডে প্রত্যেকটা টিমকেই একে অপরের সাথে একটা করে ম্যাচ খেলতে হবে। তারপর লিগটেবিলের প্রথম দুই টিম খেলবে এশিয়া কাপ ফাইনাল।

সুপার ফোরে জেতার সম্ভাবনা কার?

সুপার ফোরের চার টিমের মধ্যেই লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি। প্রতিবেশী এই চার দেশ মাঠে নামলে কেউই কাউকে ছেড়ে কথা বলে না।

শ্রীলংকা গতবারের বিজয়ী, ভারত সাত বারের বিজয়ী এবং পাকিস্তান বর্তমানে ওডিআই রাংকিংয়ে এক নম্বর, সুতরাং টক্কর একদম সমানে সমানে।

গত বুধবার ৬ই সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে সুপার ফোর রাউন্ড. প্রথম ম্যাচ ছিল বাংলাদেশ বনাম পাকিস্তান।

পরের ম্যাচ ৯ই সেপ্টেম্বর, আবার বাংলাদেশ বনাম শ্রীলংকা। ১০ই সেপ্টেম্বর আবার চির-প্রতিন্দ্বন্দী ভারত – পাকিস্তান।

১২ই সেপ্টেম্বর ভারত মুখোমুখি হবে শ্রীলংকার এবং রাউন্ডের শেষ ম্যাচ দুটি হবে শ্রীলংকা বনাম পাকিস্তান ও ভারত বনাম বাংলাদেশ।

১৫ই সেপ্টেম্বর ভারত – বাংলাদেশ ম্যাচ দিয়ে সুপার ফোর রাউন্ড শেষ হবে. তার দুদিন পরই হবে এশিয়া কাপ ফাইনাল।

কোন টিমের পাল্লা ভারী?

পাকিস্তান, শ্রীলংকা, ভারত তিন টিমই ভালো অবস্থানে থেকে রাউন্ড শুরু করেছে। পিছিয়ে নেই বাংলাদেশ ও।

ভারতের মাটিতে বিশ্বকাপের আগে নিজেদের জোর বাড়াতে উপমহাদেশীয় চার টিমই যে এশিয়া কাপের জন্য ঝাঁপাবে, বলাই বাহুল্য।

এখন দেখা যাক কে কোন অবস্থানে আছে? এবং এশিয়া কাপ ফাইনাল খেলার সম্ভাবনা কার বেশী?

টপ ফেভারিট পাকিস্তান

সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচে সাত উইকেটে বাংলাদেশকে হারিয়েছে পাকিস্তান। গত দুবছরে ওডিআই ফরম্যাটে পাকিস্তানের রেকর্ড খুবই ভালো।

ঘরের মাঠে ও বিদেশে পাকিস্তান দুই জায়গায় টানা সিরিজ জিতেছে। ওডিআই রাংকিংয়ে ও শীর্ষে তারা। এশিয়া কাপ ফাইনাল  খেলার অন্যতম দাবিদার পাকিস্তান।

যদি ও পাক টিমের অনেক দুর্বলতা আছে। সমস্যা আছে তাঁদের মিডল অর্ডারে। ভালো চতুর্থ ব্যাটসম্যানের অভাব আছে পাকিস্তানের।

পাকিস্তানের বোলিং বরাবরই শক্তিশালী। ওপেনিং অর্ডার ও বর্তমানে ভালো। অধিনায়ক হিসেবে বাবর আজমের দক্ষতা প্রশ্নাতীত।

এখন শুধু ব্যাটিং অর্ডার আরেকটু শানিয়ে নিতে পারলেই শুধু এশিয়াকাপ ফাইনাল খেলাই নয়, কাপ ঘরে ও নিয়ে যেতে পারে পাকিস্তান।

অলটাইম ফেভারিট ভারত-

এখনো পর্যন্ত এশিয়া কাপের সর্বোচ্চবার বিজয়ী হচ্ছে ভারত। সাতবার এই মহাদেশীয় টুর্নামেন্ট জিতেছে তারা।

ওডিআই রাঙ্কিং-এ তিন নম্বরে আছে ভারত। পঞ্চাশ ওভারের এই ফরম্যাটে ভারত বরাবরই দাদাগিরি দেখিয়ে এসছে।

এশিয়াকাপ ফাইনাল ভারত- পাকিস্তানের মধ্যে হওয়ার সম্ভাবনাই সবচেয়ে জোরালো। টুর্নামেন্টে সেটা হবে দুই দেশের মধ্যে তৃতীয় ম্যাচ।

বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা, হার্দিক পান্ড্য, শুভমান গিলকে নিয়ে ভারতের ব্যাটিং অর্ডার শক্তিশালী।

শামি, সিরাজ, কুলদীপ যাদব, বুমরাহকে নিয়ে ভারতের বোলিং অর্ডার ও ধারালো। টিম ইন্ডিয়ার মূল সমস্যা আসলে চোট।

ভারতের ও মিডল অর্ডার দুর্বল। চোট সারিয়ে ফিরলে ও শ্রেয়াস আইয়ার, কে এল রাহুলের পারফরম্যান্স এখনো আশানুরূপ নয়।

গ্রুপ স্টেজে ভারত-পাক ম্যাচে ভারতের ব্যাটিং অর্ডার খুবই হতাশ করেছে। যদি গ্রুপ স্টেজের বাকী ম্যাচগুলো সহজেই জিতেছে তারা।

এবারের টিম ইন্ডিয়া স্কোয়াডে যথেষ্ট ভারসাম্য রয়েছে। শুধু এশিয়া কাপ ফাইনাল খেলা নয়, এই টুর্নামেন্টে ভারতের জেতার সম্ভাবনা ও ৫২.৯২%।

গোটা ক্রিকেট দুনিয়ার কাছেই ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ মানেই ধুন্ধুমার কাণ্ড। আপামর ক্রিকেট জনতা মুখিয়ে থাকে এই ম্যাচের দিকে।

বৃষ্টির জন্য প্রথম দিনের ভারত-পাক ম্যাচ বাতিল হলে ও, এশিয়াকাপ ফাইনাল আবার এই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই দেখার সুযোগ করে দিতে পারে।

গতবারের বিজয়ী শ্রীলঙ্কা ও খেলতে পারে এবারের এশিয়া কাপ ফাইনাল। আজ পর্যন্ত ছয়বার এই টুর্নামেন্টজয়ী হয়েছে শ্রীলঙ্কা।

বর্তমানে চোট সমস্যায় জর্জরিত শ্রীলঙ্কা। স্বভাবত তাঁদের ফাইনালে ওঠার আশা তুলনমূলকভাবে কম।

আশা কম বাংলাদেশের ও। শুরুটা ভালোভাবে হলেও সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচেই হেরেছে তারা।

এখন এশিয়াকাপ ফাইনাল খেলতে হলে আগামী ভারত ও শ্রীলঙ্কার দুটো ম্যাচ জিততেই হবে তাঁদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *