টিম ইন্ডিয়া কি ২০২৩ সালের বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হবে?

Home » টিম ইন্ডিয়া কি ২০২৩ সালের বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হবে?

আইসিসি ওডিআই বিশ্বকাপ ২০২৩ টুর্নামেন্টের অধিকাংশের খেলা ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া দশটি দল প্রায় পাঁচটি করে ম্যাচ খেলেছে। বিশ্বকাপ ২০২৩ আসরের টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হচ্ছে রাউন্ড রবিন ফরম্যাটে। যেখানে প্রতিটি দল খেলবে নয়টি ম্যাচ। বিশ্বকাপে সেমিফাইনাল পর্যন্ত স্থান নিশ্চিত করার জন্য প্রতিটি দলকে প্রায় ছয় থেকে সাতটি ম্যাচ জিততে হবে। আইসিসি ওডিআই বিশ্বকাপ ২০২৩ পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে টিম ইন্ডিয়া । ভারত পাঁচ ম্যাচ খেলেছে ইতিমধ্যে, যার প্রতিটিতে তারা জয় পেয়েছে। আর তাই বিশ্বকাপের সমীকরণে সবচেয়ে এগিয়ে আছে তারা।

আজকের পর্বে বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করব কেন টিম ইন্ডিয়া বিশ্বকাপ ট্রফির অন্যতম বড় দাবিদার। একইসাথে বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করবো ভারত বিশ্বকাপ জিততে পারবে কিনা সে বিষয়ে।

টিম ইন্ডিয়া এর ক্রিকেট বিশ্বকাপ যাত্রা

ভারতের বিশ্বকাপ যাত্রা শুরু হয় অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জয় দিয়ে। তবে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে দ্বিতীয় ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া ২০০ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে মাত্র দুই রানে তিন উইকেট হারিয়ে বসে ভারত। কিন্তু চতুর্থ উইকেটে বিরাট কোহলির ৮৫ রান এবং লোকেশ রাহুলের ৯৭ রানের দুর্দান্ত ইনিংস ভারতকে জয়ের দিয়ে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিল।

এরপর থেকেই পরপর চারটি ম্যাচে জয় পেয়েছে ভারত। এছাড়াও নেট রান রেটের হিসেবেও ভারত তাদের স্থান পাকা করে রেখেছে।

বিশ্বকাপে ভারত নিউজিল্যান্ড, পাকিস্থানের মতো দাপুটে দলের বিপক্ষে দুর্দান্ত জয় ছিনিয়ে নিয়েছে।

আর তাই স্পষ্টভাবে বলা যায় ২০২৩ ওডিআই বিশ্বকাপে ভারত দুর্দান্ত জয়ের ধারাবাহিকতায় রয়েছে।

টিম ইন্ডিয়া এর বিশ্বকাপ প্রস্তুতি

টিম ইন্ডিয়া এর বিশ্বকাপ প্রস্তুতি বিশ্বকাপের পূর্বেই সম্পন্ন হয়েছিল। যদিও বিশ্বকাপ শুরুর পূর্বে লোকেশ রাহুল এবং শ্রেয়াস আইয়ারকে পাওয়া নিয়ে দ্বিধার মধ্যে ছিল ভারত। তবে বর্তমানে দুজন খেলোয়াড় সম্পূর্ণ ফিট থেকে খেলায় অংশ নিচ্ছে। এছাড়াও ভারতীয় দলের স্বস্তির বড় কারন লোকেশ রাহুলের দাপুটে ফর্মে থাকা।

ইনজুরি থেকে ফিরেই দারুণ ফর্মে আছেন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। এছাড়াও ভারতের ভরসার অন্যতম প্রতীক বিরাট কোহলি।

প্রায় প্রতিটি ম্যাচেই দলের হাল ধরছেন বিরাট। আর তাই বোলিং এবং ব্যাটিং উভয় পর্যায়ে ভারতীয় দলের বিশ্বকাপ প্রস্তুতি পরিপূর্ণ।

এছাড়াও তারা তাদের লক্ষ্যপানে অটুট রয়েছে এবং জয়ের ধারাবাহিকতা রক্ষা করছে।

প্রতিযোগিতা বিশ্লেষণ

ভারত ইতিমধ্যেই বিশ্বকাপের পাঁচটি ম্যাচ খেলেছে। প্রতিটি ম্যাচেই দুর্দান্ত জয় পেয়েছে ভারত। বিশ্বকাপে ভারত আরো চারটি ম্যাচ খেলবে যথাক্রমে ইংল্যান্ড, সাউথ আফ্রিকা, নেদারল্যান্ডস এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। এরমধ্যে যেকোন একটি ম্যাচে ভারত জয় পেলেই তাদের এক পা চলে যাবে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে। ভারত যদি চারটি ম্যাচের দুটিতে জয় পায় তাহলে তাদের মোট জয়ের সংখ্যা হবে সাত।

এতে ভারত নিশ্চিতভাবে সেমিফাইনালে খেলার সুযোগ পাবে। অন্যদিকে সাউথ আফ্রিকা এবং নিউজিল্যান্ড চারটি ম্যাচে জয় পেয়েছে।

উভয়ের যদি দুটি করে জয় পায় তবে তারা সেমিফাইনালে খেলার সুযোগ পাবে।

তিনটি ম্যাচে জয় পেলে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করবে দলগুলো।

অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়া, পাকিস্থান এবং শ্রীলঙ্কা এই তিনটি দলের মধ্যে নেট রানরেটের হিসেবে এগিয়ে আছে অস্ট্রেলিয়া।

এছাড়াও অস্ট্রেলিয়া জয় পেয়েছে তিনটি ম্যাচে।

এক্ষেত্রে তারা বাকি চারটি ম্যাচের মধ্যে তিনটি ম্যাচে জয় পেলে সেমিফাইনাল খেলার দিকে এগিয়ে থাকবে।

কিন্তু শ্রীলঙ্কা এবং পাকিস্তানকে সেমিফাইনাল খেলতে হবে চারটি ম্যাচের চারটিতেই জয় নিশ্চিত করতে হবে।

প্রতিযোগিতার বিশ্লেষণ অনুযায়ী সবচেয়ে ভালো অবস্থানে আছে ভারত।

অর্থাৎ আর মাত্র একটি ম্যাচে জয় নিশ্চিত করতে পারলেই তারা সেমিফাইনালের টিকিট পেয়ে যাবে।

টিম ইন্ডিয়া এর সাফল্যের জন্য মূল কারণ

আইসিসি বিশ্বকাপ ২০২৩ মৌসুমের সবচেয়ে সফল দল ভারত। কেননা তারা পাঁচটি ম্যাচ খেলে সবগুলোতেই দুর্দান্ত জয় ছিনিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছে। ভারতের এই দুর্দান্ত ধারাবাহিকতার পেছনে বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে। নিচে কয়েকটি মূল কারণ বিবৃতি আকারে দেওয়া হলো।

১। খেলোয়াড়দের মধ্যকার বোঝাপড়া

সম্প্রতি দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রোহিত শর্মা বলেছেন যে ভারতীয় দলের খেলোয়াড়দের মধ্যকার বোঝাপড়া অত্যন্ত ভালো, যেটি বিশ্বকাপে তাদের প্রতিটি ম্যাচে জয় পাওয়ার পেছনের মূল কারণ। রোহিত বলেছেন ড্রেসিং রুম, অনুশীলন মাঠে এবং খেলার মাঠেও প্রতিটি খেলোয়াড়, স্টাফদের মধ্যকার বোঝাপড়া অত্যন্ত ভালো। যেটি তাদের মানসিকভাবে প্রতিপক্ষের বিপক্ষে লড়তে শক্তি যোগায়।

অধিনায়ক রোহিত এটিকেই তাদের ধারাবাহিক সাফল্যের অন্যতম কারণ মনে করেন।

২। ব্যাটসম্যানদের দুর্দান্ত ফর্ম

ভারতের বিশ্বকাপ ব্যাটিং লাইনআপ অত্যন্ত শক্তিশালী। ওপেনিং অবস্থানে আছেন অধিনায়ক রোহিত শর্মা এবং দুর্দান্ত ফর্মে থাকা শুভমান গীল। অন্যদিকে তৃতীয় অবস্থানে নামেন দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলি। বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক এর তালিকায় তার নাম রয়েছে সেরা পাঁচজনের মধ্যে। এছাড়াও লোকেশ রাহুল দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছে। সবমিলিয়ে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের দুর্দান্ত ধারাবাহিকতা তাদের বিশ্বকাপ সাফল্যের অন্যতম বড় একটি কারণ।

৩। অধিনায়কত্ব

বিশ্বকাপে ভারতীয় দলের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করছেন রোহিত শর্মা। রোহিত শর্মা রয়েছে বিগত অনেকগুলো টুর্নামেন্ট এবং সিরিজের অধিনায়কত্বের অভিজ্ঞতা। আর তাই উক্ত অভিজ্ঞতার ফসল হিসেবে বিশ্বকাপে ভারতীয় দল পাচ্ছে অভিজ্ঞ অধিনায়কের সান্নিধ্য।

এতে দলের প্রয়োজনে যেকোন সিদ্ধান্ত অভিজ্ঞতার সাথেই দিচ্ছেন রোহিত।

এটি দলের সাফল্যের অন্যতম কারণ হিসেবে উল্লেখ করা যায়।

৪। ঘরের মাঠ

ঘরের মাঠে যেকোন দল সবচেয়ে শক্তিশালী হয়ে উঠতে পারে। ভারতের ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম কিছু নয়।

ঘরের মাঠে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স বজায় রেখেছে তারা।

বিশ্বকাপের মত বড় মঞ্চের খেলা তাদের ঘরের মাঠে হওয়াতে বাড়তি কিছুটা হলেও সুবিধা পাচ্ছে রোহিত শর্মার দল।

৫। শক্তিশালী বোলিং লাইনআপ

শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপ এর পাশাপাশি ভারতের আছে দুর্দান্ত বোলিং লাইনআপ।

বুমরাহ, শামী, সিরাজ পেস বোলিং ইউনিটে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করছেন। এছাড়াও জাদেজা, কুলদীপ রয়েছে স্পিন বোলিং পর্যায়ে।

তারা প্রত্যেকেই দুর্দান্ত পারফরম্যান্স বজায় রেখেছেন। যেটি ভারতের জয়ের ধারাবাহিকতা রক্ষার ক্ষেত্রে অন্যতম একটি কারণ।

৬। প্রশিক্ষক এবং ব্যবস্থাপনা কৌশল

টিম ইন্ডিয়া এর প্রশিক্ষক এবং সম্পূর্ণ ব্যবস্থাপনা কৌশল বিশ্বকাপে তাদের জয়ের ধারাবাহিকতা রক্ষায় অবদান রেখেছে।

দলের প্রয়োজন অনুযায়ী স্কোয়াড ঘোষণা এবং দলের প্রয়োজনে যেকোন খেলোয়াড়কে খেলানো একটি দক্ষ ব্যবস্থাপনার উদাহরণ হিসেবে কাজ করেছে। এটি ভারতের ধারাবাহিক পারফরমেন্সের অন্যতম একটি কারণ। চলমান বিশ্বকাপের হট ফেভারিট দল ভারত। এছাড়াও তাদের ধারাবাহিক সাফল্য দেখে বলা যেতে পারে বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ের লড়াইতে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে ভারত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *