বিরাট কোহলি র বাংলাদেশ দলকে কাছ থেকে শেখার আহ্বান জানিয়েছেন শ্রীধরন শ্রীরাম

Home » বিরাট কোহলি র বাংলাদেশ দলকে কাছ থেকে শেখার আহ্বান জানিয়েছেন শ্রীধরন শ্রীরাম

আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ, ২০২৩-এর জন্য বাংলাদেশের প্রযুক্তিগত পরামর্শক শ্রীধরন শ্রীরাম, বিরাট কোহলির কাছ থেকে তাদের ব্যাটসম্যানদের একটি পরামর্শ দিয়েছেন।

তিনি ওডিআই ফরম্যাটে তাদের ব্যাটসম্যানদের ইনিংস গঠনের জন্য বিরাট কোহলির ইনিংস গঠনের পদ্ধতি থেকে শেখার গুরুত্বের উপর জোর দিয়েছেন।

বাংলাদেশ পুরুষ ক্রিকেট দলের টেকনিক্যাল পরামর্শক শ্রীধরন শ্রীরাম তার দলকে একটি ওডিআই ইনিংস নির্মাণ ও পেসিংয়ে বিরাট কোহলির ব্যাটিং থেকে অনুপ্রেরণা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

শ্রীরাম ইনটেন্টের গুরুত্ব, উইকেটের মধ্যে ব্যাটারদের রানিং এবং মাঠের মধ্যে ফিল্ডারদের ফাঁক খুঁজে বের করার উপর জোর দিয়েছিলেন।

বিরাট কোহলির যে গুণাবলীর উদাহরণ পুনেতে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ, ২০২৩ ম্যাচে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে তার ইনিংসের সময় দেখিয়েছিলেন।

একনজরে দেখে নিই বিরাট কোহলির বাংলাদেশ ম্যচ পর্যন্ত সমস্ত দলের বিরুদ্ধে স্কোর

সময় আসে, মানুষ আসে, বড় মঞ্চে তার উজ্জ্বলতার উত্তরাধিকার অব্যাহত রেখে।

তেমনই প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি তার দলকে এই বিশ্বকাপে কঠিন পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে সাহায্য করেছেন প্রায় সবকটি ম্যাচেই।

যার মধ্যে দলকে ২-৩ স্কোর থেকে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেই ভারতকে জয়ী করাও রয়েছে।

বিরাট কোহলির ম্যাচ গুলিতে স্কোর

১ম ম্যাচ ভারতের, ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১১৬ বলে ৮৫ রান।

২য় ম্যাচ ভারতের,ভারত বনাম আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৫৬ বলে ৫৫ রান।

৩য় ম্যাচ ভারতের,ভারত বনাম পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৮ বলে ১৬ রান।

৪র্থ ম্যাচ ভারতের, ভারত বনাম বাংলাদেশের বিপক্ষে ৯৭ বলে ১০৩ রান।

এই 4 ম্যাচে বিরাট কোহলি মোট রান করেছেন ২৫৯, ১২৯.৫০ গড়ে।

 এই চার ম্যাচে ব্যাট করার সময় তার স্ট্রাইক রেট ছিল ৯০.২৪।

আমরা আমাদের এই নিবন্ধে আরও এগোনোর আগে আসুন দেখে নিই ২০২৩ সালের আইসিসি বিশ্বকাপের জন্য বাংলাদেশের স্কোয়াড:

সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), লিটন কুমার দাস, তানজিদ হাসান তামিম, নাজমুল হোসেন শান্ত (সহ অধিনায়ক), তাওহিদ হৃদয়, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদি হাসান মিরাজ, নাসুম আহমেদ, শাক মাহেদী হাসান, তাসকিন আহমেদ, মুস্তাফিজুর রহমান, মাহবুবুর রহমান, শরিফুল ইসলাম, তানজিম হাসান সাকিব।

বিরাট কোহলি সম্বন্ধে বাংলাদেশের টেকনিক্যাল পরামর্শক, শ্রীধরন শ্রীরাম ঠিক কী বলেছেন আসুন দেখে নিই

তিনি একদিকে বিরাট কোহলির এই আইসিসি বিশ্বকাপে দুর্দান্ত ব্যাটিং এবং অন্যদিকে বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং প্রসঙ্গে বলেছেন, বিরাট কোহলির ব্যাটিং সত্যিই ভাল ছিল।

তিনি এই প্রসঙ্গে আরও বলেন তার এটা সত্যিই ভালো লাগে যে বিরাট কোহলি প্রায় ৭০ থেকে ৮০ রানে না পৌঁছানো পর্যন্ত বাতাসে একটি বলও কখনই মারবার চেষ্টা করেন না।

  আর, এটি একটি দুর্দান্ত শিক্ষনীয় পাঠ সকলের জন্যেই যে কীভাবে ব্যাটিং -এর সময় তারা নিজেদের ইচ্ছা পোষণ করতে পারে এবং উইকেটের মাঝে আরও দ্রুত দৌড়ানো শিখতে পারে।

 উইকেট এবং ব্যাটের ফাঁক কীভাবে কমানো যায় এবং তিনি মনে করেন যে বিরাট কোহলি খুব পেশাদার ছিলেন।

 শ্রীরাম বাংলাদেশের সম্প্রচার অধিকার ধারক জিটিভিকে একটি সাক্ষাতকারে বিরাট কোহলি সম্পর্কে এ-কথা বলেন।

বিশ্বকাপ, ২০২৩-এ বাংলাদেশের এখনো পর্যন্ত পারফর্মেন্স

ক্রিকেট বিশ্বকাপ,২০২৩, ৩ নং ম্যাচ

৭ই অক্টোবর

আফগানিস্তান ১৫৬ (৩৭.২)

বাংলাদেশ ১৫৮/৪ (৩৪.৪)

বাংলাদেশ ৬ উইকেটে (৯২ বল বাকি রেখে) জিতেছে।

ক্রিকেট বিশ্বকাপ,২০২৩, ৭ নং ম্যাচ

১০ই অক্টোবর

ইংল্যান্ড ৩৬৪/৯ (৫০)

বাংলাদেশ ২২৭ (৪৮.২)

ইংল্যান্ড ১৩৭ রানে জিতেছে

ক্রিকেট বিশ্বকাপ,২০২৩, ১১ নং ম্যাচ

১৩ই অক্টোবর

বাংলাদেশ ২৪৫/৯ (৫০)

নিউজিল্যান্ড ২৪৮/২ (৪২.৫)

নিউজিল্যান্ড ৮ উইকেটে (৪৩ বল বাকি রেখে) জিতেছে।

ক্রিকেট বিশ্বকাপ,২০২৩, ১১ নং ম্যাচ

১৯শে অক্টোবর

বাংলাদেশ ২৫৬/৮ (৫০)

ভারত ২৬১/৩ (৪১.৩)

ভারত ৭ উইকেটে (৫১ বল বাকি রেখে) জিতেছে।

বাংলাদেশ বনাম ভারত ম্যাচের পরিপ্রেক্ষিতে শ্রীধরন শ্রীরামের মন্তব্য

১৯ শে অক্টোবর পুনের মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে একটি রোমাঞ্চকর সংঘর্ষে, তারকা ভারতীয় ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলি একটি দুর্দান্ত সেঞ্চুরির মাধ্যমে তার দক্ষতা প্রদর্শন করেছিলেন বাংলাদেশের বিপক্ষে।

 বিরাট কোহলির এই আসাধারণ ইনিংস ভারতকে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সাত উইকেটের আরামদায়ক জয়ে নেতৃত্ব দেয়।

এদিকে, টাইগাররা তাদের ব্যাটিং লাইনআপ নিয়ে এই ম্যাচেও লড়াই করে চলেছে।

বাংলাদেশ দল প্রাথমিকভাবে লিটন দাস, যিনি ৬৬ রান করেন এবং তানজিদ হাসান তামিম, যিনি এই ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে ৫১ রান করে বিশেষ অবদান রাখেন।

 এর মধ্যে একটি দুর্দান্ত উদ্বোধনী জুটির প্রতিশ্রুতি দেখিয়েছিল।
মাত্র ১৫ ওভারে তাদের ৯৩ রানের জুটি একটি উল্লেখযোগ্য রান সংগ্রহের জন্য একটি শক্তিশালী ভিত্তি তৈরি করে।

তবে এই শক্তিশালী শুরুকে পুঁজি করতে অন্য ব্যাটসম্যানদের অক্ষমতাই শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ দলকে পতনের দিকে নিয়ে যায়।

তানজিদ তামিম আউট হওয়ার পর, তারা দ্রুত উইকেট হারায়, নাজমুল হোসেন শান্ত, মেহেদি হাসান মিরাজ এবং লিটন দাসের দ্রুত পতন ঘটে এই সময়।

এই আকস্মিক পতনের ফলে ২৮তম ওভারে বাংলাদেশকে ১৩৭-৪ -এ লড়াই করতে হয়েছিল, এমন পরিস্থিতি যা থেকে পুনরুদ্ধার করা কঠিন বলে প্রমাণিত হয়।

শ্রীরাম বলেছেন

তিনি বাংলাদেশ ব্যাটিং ইউনিটের পারফরম্যান্সে হতাশ হলেও তাদের সম্ভাবনার প্রতি তার আস্থা প্রকাশ করেছেন।

প্রযুক্তিগত পরামর্শদাতা জানান, অবশ্যই হতাশাজনক।

হার সত্ত্বেও, তিনি ফোকাস থাকার এবং বিশ্বকাপের মতো দীর্ঘ টুর্নামেন্টে বাউন্স ব্যাক করার উপায় খুঁজে বের করার গুরুত্ব তুলে ধরেন।

তিনি মনে করেন বিশ্বকাপ একটি দীর্ঘ টুর্নামেন্ট এবং প্রতিটি পরাজয় কষ্টের।

তবে এটি ভোলার উপায় খুঁজে বের করতে হবে,  এবং তাদের ফিরে আসতেই হবে এবং পরবর্তী খেলায় ফোকাস করার চেষ্টায় তাদের এখন করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *