মোহাম্মদ সিরাজ ৬/২১ দিয়ে শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তিদের বিশ্ব রেকর্ডের সমান

Home » মোহাম্মদ সিরাজ ৬/২১ দিয়ে শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তিদের বিশ্ব রেকর্ডের সমান

মোহাম্মদ সিরাজ এর ৬/২১ বোলিং পরিসংখ্যান দিয়ে শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তির বিশ্ব রেকর্ডের সমান কীর্তি করেছেন।

বহুল প্রতীক্ষিত এশিয়া কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল ইতিমধ্যে অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে। এশিয়া কাপ ক্রিকেটকে ঘিরে উন্মোদনার কোন কমতি ছিল না শুরু থেকে। সর্বমোট ছয়টি দলের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছিল এবারের এশিয়া কাপ টুর্নামেন্ট। শুরুতেই গ্রুপ পর্বের খেলা এবং এরপর সুপারফোর খেলা যথারীতি আরম্ভ হয়েছিল। শ্রীলঙ্কা এবং পাকিস্তানে যৌথভাবে আয়োজন করা হয়েছিল এবারের এশিয়া কাপ টুর্নামেন্ট।

দুর্দান্ত নাটকীয়তায় মধ্য দিয়েই ফাইনালে পৌঁছেছিল শ্রীলংকা দল। যদিও ভারত ফাইনালে উঠেছিল খুবই সহজ পরিসংখ্যানে। এশিয়া কাপ একটি বড় ক্রিকেটের মঞ্চ। আর তাই স্বাভাবিকভাবে এশিয়া কাপ ফাইনালকে ঘিরে অনেক প্রত্যাশা রেখেছিল ক্রিকেট অনুরাগীরা। তবে এমনটি মোটেও হয়নি এশিয়া কাপ ২০২৩ ফাইনালের মঞ্চে।

ভারতের দাপুটে বোলার মোহাম্মদ সিরাজের অসাধারণ কীর্তিতে মাত্র ৫০ রানে অলআউট হয়ে যায় শ্রীলংকা। এশিয়া কাপের মতো বড় মঞ্চে শ্রীলংকা একটি লজ্জাজনক হারের সম্মুখীন হয়। এদিন সিরাজের মাত্র ২১ রান দিয়ে শিকার করে নেন ৬টি উইকেট। এছাড়াও এক ওভারে ৪টি উইকেট নিয়ে রেকর্ড গড়েন তিনি। এশিয়া কাপ ফাইনালের পুরো ম্যাচটাই ভারতের দিকে ঘুরিয়ে দেন মোহাম্মদ সিরাজ। একই সাথে এই একটি ম্যাচের মধ্য দিয়ে একাধিক রেকর্ড গড়তে সক্ষম হন ভারতের এই পেস বোলার।

শ্রীলঙ্কা বনাম ভারতের এশিয়া কাপ ফাইনাল ম্যাচের হাইলাইট ফ্যাক্টর এবং মোঃ সিরাজের গড়া দুর্দান্ত সব রেকর্ড সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য থাকছে এই নিবন্ধে।

মোহাম্মদ সিরাজ এর ক্রিকেট ইতিহাস

মোহাম্মদ সিরাজ এর ক্রিকেট যাত্রা আহামরি সুদীর্ঘ নয়। ২০১৮ সালে জাতীয় দলের হয়ে প্রথম আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় ভারতের এই পেস বোলারের। মোহাম্মদ সিরাজ বেশিরভাগ সময়টা আইপিএলে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু এর হয়ে খেলেছেন।

সেখানে তিনি তার দুর্দান্ত বোলিং পারফরমেন্সের জন্য জাতীয় দল পর্যন্ত নিজের জায়গা করে নিতে সক্ষম হয়েছিলেন।

মোহাম্মদ সিরাজ তার ক্যারিয়ারে খেলেছেন ২৯ টি ওডিআই ম্যাচ এবং ২১ টি টেস্ট ম্যাচ।

ওয়ানডে ফরমেটে সিরাজ উইকেট শিকার করেছেন ৫৩টি এবং টেস্ট ক্রিকেটে তার শিকার ৫৯টি উইকেট।

এছাড়াও তিনি ৮টি টি টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ১১টি উইকেট শিকার করেছেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সিরাজের ক্যারিয়ার যদিও দীর্ঘ হতে পারেনি, তবে বর্তমান সময়ে ভারতের অন্যতম বোলার তিনি।

এছাড়াও সেপ্টেম্বর ২০২৩ এ তিনি আইসিসি ওডিআই বিশ্বসেরা বোলারদের মধ্যে নবম স্থান অর্জন করেছেন।

এশিয়া কাপের ন্যায় বড় মঞ্চের ফাইনালে সিরাজের এমন ভয়ানক কৃতি নিঃসন্দেহে জানান দেয় ভারতের অন্যতম বলার হওয়ার দাবিদার সিরাজ।

এশিয়া কাপ ফাইনাল ২০২৩: শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ

গত ১৭ সেপ্টেম্বর রবিবার শ্রীলঙ্কার কলম্বো রাজ্যের আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে আয়োজিত হয়েছিল এশিয়া মহাদেশের অন্যতম ক্রিকেট টুর্নামেন্ট এশিয়া কাপের চুড়ান্ত ম্যাচ। উক্ত ম্যাচে টসে জিতে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল শ্রীলঙ্কা দল।

শুরুতে ব্যাটিং করতে নেমেই বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়েছে শ্রীলঙ্কার ব্যাটসম্যানরা।

জসপ্রীত বুমরাহ তার প্রথম ওভারে বোলিং করতে এসেই কুশল পেরেরার গুরুত্বপূর্ণ উইকেটটি তুলে নেন।

এতে অনেকটাই চেপে পড়ে শ্রীলঙ্কা। জসপ্রীত বুমরাহ এর পর আক্রমণে এসেই চমক দেখান মোহাম্মদ সিরাজ।

ইনিংসের চতুর্থ ওভারে নিজের দ্বিতীয় ওভার বোলিং করতে আসেন সিরাজ।

এশিয়া কাপ ফাইনালের এই চতুর্থ ওভারেই যত কীর্তি করেন সিরাজ। এ যেন উইকেটের বৃষ্টি পড়ছিল সেদিন ফাইনালে।

প্রথমে নিসাঙ্কাকে আউট করেন সিরাজ এরপর একই ওভারেই একে একে তুলে নেন সাদিরা সামারাবিক্রমা, চারিথ আসালাঙ্কা ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার মতো তারকা ব্যাটসম্যানদের উইকেট। ইনিংসের এক ওভারে তুলে নেন চারটি মূল্যবান উইকেট।

আর এতেই প্রথম বোলার হিসেবে একবারে চারটি উইকেট শিকা রের রেকর্ড গড়েন তিনি।

একইসাথে পুরো ম্যাচকে ভারতের দিকে ঘুরিয়ে দেন সিরাজ।

সিরাজ তার তৃতীয় ওভার বল করতে এসে তুলে নেন আরেকটি উইকেট।

আর এখানেই মাত্র ১৬ বলে ৫ উইকেট শিকারের রেকর্ড গড়েন তিনি।

যদিও ইতিপূর্বে শ্রীলঙ্কার দুই কিংবদন্তি পেসার ভাস ও আলী ১৬ বল খরচ করে ৫ উইকেট শিকার করে রেকর্ড গড়েন।

এবার সে তালিকায় সিরাজের নাম যোগ হলো। ৭ ওভার বোলিং শেষে ২১ রান খরচ করে সিরাজের শিকার ৬টি উইকেট।

সিরাজের পর হার্দিক পান্ডিয়া বোলিং করতে এসে একে একে তুলে নেন তিনটি উইকেট।

এতেই ১৫.২ বলে মাত্র ৫০ রানে অল আউট হয় শ্রীলঙ্কা।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে খুব সহজ জয় ছিনিয়ে নেয় ভারত।

মাত্র ৩৭ বল খেলে ১০ উইকেটে জয় পায় তারা, এর সাথেই এশিয়া কাপের অষ্টম শিরোপা জয় করে নেয় ভারত।

শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি বোলারের বিশ্ব রেকর্ড

ইতিপূর্বে মাত্র ১৬ বল খরচ করে ৬ উইকেট শিকারির তালিকায় ছিল শ্রীলঙ্কার সাবেক দুই ক্রিকেটার চামিন্দা ভাস ও আলী খান।

তবে শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি বোলারদের এই বিশ্বরেকর্ডের সাথে এবার যুক্ত হবে মোহাম্মদ সিরাজের নাম।

একই সাথে এশিয়া কাপের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে দ্বিতীয় সেরার খেতাব জিতে নিয়েছেন মোহাম্মদ সিরাজ।

এশিয়া কাপের মঞ্চে শ্রেষ্ঠত্বের এই লড়াইতে প্রথম অবস্থানে আছেন সাবেক শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার অজন্তা মেন্ডিস, যিনি ভারতের বিপক্ষে ১৩ রান খরচ করে ৬টি উইকেট শিকার করেন। এবার তার ঠিক পরের অবস্থানেই স্থান পেল সিরাজ।

মোহাম্মদ সিরাজ এর কর্মক্ষমতার প্রভাব

মোহাম্মাদ সিরাজের দাপুটে বোলিং পারফরমেন্স এর কারণে ভারত এশিয়া কাপের ফাইনালে সহজ জয় পায়।

এশিয়া কাপের চূড়ান্ত ম্যাচে শ্রীলঙ্কার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটসম্যানদের উইকেট তুলে নেন সিরাজ।

আরে এতেই পুরো ম্যাচটি ভারতের দিকে ঘুরে যায়। সিরাজের এই দাপুটে পারফরম্যান্স তার ক্যারিয়ারের জন্য যেমনই দুর্দান্ত এক প্রভাব ফেলেছে তেমনি বিশ্বকাপের পূর্বে তার এমন ভয়ানক রূপ ভারতকে আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে।

৬/২১ পরিসংখ্যানের তাৎপর্য

মোহাম্মদ সিরাজ এর ৬/২১ বোলিং পরিসংখ্যান শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি বোলারের বিশ্ব রেকর্ডের সমান। কেননা ইতিপূর্বে শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি দুই পেসারের এমন দুর্দান্ত বোলিং পরিসংখ্যান এবং বিশ্বরেকর্ড ছিল। এবার ভারতের একমাত্র বোলার হিসেবেই এশিয়া কাপের মঞ্চে ৬/২১ বোলিং পরিসংখ্যান দিয়ে শ্রীলঙ্কার বিশ্ব রেকর্ডের সমান কীর্তি করেছেন মোহাম্মদ সিরাজ।

তারই পরিপ্রেক্ষিতে ৬/২১ পরিসংখ্যানের তাৎপর্য ভারতীয় বোলার হিসেবে সিরাজের কাছে এক অনন্য পরিসংখ্যান হয়ে থাকবে।

এশিয়া কাপের ফাইনালে ৬/২১ বোলিং পারফরম্যান্সের জন্য ম্যান অব দ্যা ম্যাচ পুরস্কার পেয়েছিলেন সিরাজ।

তবে ম্যাচের পুরো টাকা তিনি মাঠের পরিচ্ছন্নকর্মীদের সাথে শেয়ার করেন। সিরাজের দাপুটে বোলিং কীর্তির পাশাপাশি তার এমন উদার কাজের জন্য প্রশংসায় ভাসছেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *